bangla choti golpo সমাহার

বিসমিল্লাহীর রহমানির রাহীম

bangla choti golpo বর্তমানে বাংলাদেশের যুব সমাজের বেশীর ভাগ লোকের কাছে একটি ইন্টারেষ্টিং বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। মূলত এই ধরনের গল্প গুলো এখন সবচেয়ে বেশী ছড়িয়েছে ফেসবুকের বিভিন্ন ফালতু 18+ পেজের মাধ্যমে। তবে ইদানীং দেখা যাচ্ছে, এই ধরনের গল্প গুলো নিয়ে এখন প্রচুর পরিমাণে ডোমেইনও ক্রিয়েট করা হচ্ছে।

[বি:দ্র: পোষ্টে হেডিং এর সাথে কিন্তু লেখার কোন মিল পাবেন না। তাই আমাকে কেউ ভূল বুঝবে না। শুধু মাত্র প্রচুর দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্যই এমন পোষ্ট করেছি]

বর্তমানে নেটে গুগলে যদি কেউ bangla choti golpo লিখে সার্চদেয় তাহলে গুগল  3,160,000+ টি ফলাফল (0.12 সেকেন্ড) প্রকাশ করে থাকে !

এবার ভেবে দেখুনতো? bangla choti golpo নেটে কি পরিমাণ ভরপুর। এইতো মাত্র কয়েক বছর আগেও নেটে এই সকল অপসংস্কৃতি পাওয়া যেতো না বললেই চলে। কিন্তু এখন এই গল্প গুলি যেন আমাদের নিত্য দর্শণীয় বস্তুতে পরণিত হয়েছে।

অবসরে যখন ফেসবুকে ঘ‍ুরছি, হঠাৎ একজনে একটি গল্পে লাইক দিল বা শেয়ার দিল আর সাথে সাথে আমার কাছেও এসে গেল, ঐ ধরনের একটি গল্প :p এভাবে দেখা যায় সচরাচর অনেক সময়ই অনেক নিকটস্থ বন্ধুও হঠাৎ এই ধরনের গল্প গুলো শেয়ার বা লাইক করে আমাদেরকে বিব্রত করে দেয়। আবার অনেক সময় যদি ফেসবুক ইউজ করার সময় সাথে কোন আলেম বা বড় ভাই/আত্নীয়-স্বজনদের মধ্যে কেউ থাকে তাহলেতো আর ইজ্জতে কিছুই বাকি থাকে না, সবটুকুই যেন গঙ্গার জলে ভেসে যাচ্ছে….

খেয়াল করে দেখেছেন কি bangla choti golpo গুলো কিভাবে ‌আমাদের দেশে এত্তো কম সময়ের মধ্যেই জনপ্রিয়তা লাভ করল? ছোট বেলায় প্রায়ই দেখতাম মহাখালিতে, ফার্মগেটে বা গুলিস্থানে এসকল বই প্রচুর পরিমান পাওয়া যেত। অনেকেরই ধারণা তখন এই বই গুলো ইন্ডিয়া থেকে আসত। তবে তখন ঐ বই গুলো তেমন বেশী জনপ্রিয়তা পায় নি। সমাজের খুব কম লোকেরাই ঐ বই গুলো ক্রয় করত বা পড়ত।

কিন্তু এখন পুরোই উল্টো। এখন সমাজের বেশীর ভাগ লোকেরাই, মূলত যারা নেট ইউজ করেন তাদের মধ্য শতকরা 90 শতাংশ ইউজারাই bangla choti golpo কম বেশী পড়ে থাকে। যার চরম স্বাক্ষী হচ্ছে গুগল। কারণ বিগত বছরে (2013) ‍বাংলাদেশ থেকে সবচেয় বেশী সার্চ পড়েছে যেই কথাটি সেটি হল bangla choti !

আপনি অবাক হয়ে যাবেন, আজ আমি নিজেও দেখলাম যে, এখনও পর্যন্ত bangla choti golpo লিখে বাংলাদেশ থেকে প্রতি মাসে সার্চ পড়ছে প্রায় পঞ্চাশ হাজারের মত!

একবার ভেবে দেখুন আমরা যারা নেট ইউজ করি, তাদের নৈতিকতা কতটুকু নিম্ম গামী হয়েছে। এছাড়াও আমাদের সমাজের শিশুদের মধ্যেও পড়ছে এর কু-প্রভাব।

ফেসবুকের নিয়মানুসারে বর্তমানে 13 বছর বয়স হলেই, ব্যবহার করা যায় ফেসবুক। এবার ভাবুন 13 বছর বয়সি আপনার আমার ছোট ভাই/বোন/সন্তানেরা প্রতি নিয়ত দর্শন পাচ্ছে এই অপসংস্কৃতির। যা চারিত্রিক গুণাবলীকে বিকলঙ্গ করে দিচ্ছে। কমে যাচ্ছে তাদের ধর্মীয়-সামাজিক-নৈতিক মূল্যবোধ।

সাধারণত ঐসকল নষ্ট গল্প গুলোর লেখকরা যা ইচ্ছে তাই লিখে থাকে। এমনি কি এই অমানুষরা (আল্লাহ ওদেরকে হেদায়েত দান করুন) নিজের মা অথবা বোন কে নিয়েও লিখতে দিধাবোধ করে না। তাহলে এসকল গল্প পড়ে আমাদের কোমলমতি ছোট ভাইবোনেরা কি শিখছে?

আমারই অনেক বন্ধু আছে, যারা ফেসবুকে ফ্যাক আইডি তৈরি করেছে শুধু মাত্র চটি পড়ার এবং লাইক-শেয়ার করার জন্য। সাধারণত দিনের বেলায় চ্যাটে যদি থাকে 250 জন ফ্রেন্ড তাহলে রাত্রে থাকে 500-600 জন ফ্রেন্ড। পরিচিতদের সাথে আলাপচারিতায় বুঝতে পারলাম যে, প্রায় সকলেই রাত্রে (মধ্যভাগে) bangla choti golpo পড়ে থাকে।

যারা নিয়মিত এই ধরনের চটি গুলো পড়ে থাকেন, তাদের মধ্যে আমি অনেককেই জিজ্ঞাসা করার পর তারা সকলেই প্রায় একই ধরনের উত্তর দিয়েছেন: মূলত প্রথম প্রথম এই ধরনের bangla choti golpo ফেসবুক সহ বিভিন্ন সাইটে প্রকাশ হত ইন্ডিয়ানদের মাধ্যমে, পরবর্তীতে কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের অনেক পেজ এডমিন এবং ব্লগারাও নাকি এখন এধরনের লেখা তৈরি ও প্রকাশ করে থাকেন।

আমার মনে হয় একমাত্র ধর্মীয় মূল্যবোধ কমেযাওয়ার কারণেই এসকল গল্প তৈরি করা হচ্ছে ও বেশি বেশি পড়া হচ্ছে। যদি আমাদের ধর্মীয়মূল্যবোধ সামান্য পরিমানও থাকত তারপরও মনে হয় কেউ নিজের মা অথবা বোনেকে নিয়ে এমন কু-সংস্কৃতি তৈরি করতে পারতেন না। শুধু ইসলাম ধর্মে নয়, হিন্দু-খ্রিষ্টান-বৌদ্ধসহ সকল ধর্মেই এসকল bangla choti golpo 100% নিষিদ্ধ। অথচ আমাদের সমাজের নাস্তিকরাসহ প্রায় সকল ধর্মেরলোকই এই ধরনের গল্প পড়তে ও লিখতে দিন দিন বেশী থেকে বেশী আগ্রহী হয়ে যাচ্ছে।

bangla choti golpo থেকে মুক্তির অন্যতম পথ

Bangla choti golpo_ techtonesbd.com

Bangla choti golpo_ techtonesbd.com

সকল অশ্লীলতা-অশান্তি থেকে মুক্তির একমাত্র পথ হচ্ছে “ইসলাম”। এবারের ইজতেমায় শুনেছি, যারা প্রকাশ্যে পাপাকার্যে লিপ্ত হয় তারা হলো “বেহায়” অর্থাৎ বেসরম/বেলাজ। আর যারা গোপনে পাপাকার্যে লিপ্ত হয়, তারা তাকওয়াবান নয়।

মুসলিমদের অবশ্যই তাকওয়াবান হতে হবে। আর যখন একজন মুসলিম নিজে তাকওয়াবান হওয়ার চেষ্ট করবে, ইনশআল্লাহ তখনই সে সকল অশান্তি-অশ্লীলতা থেকে মুক্তি পেতে পারে সহজেই। তাই সমাজ থেকে যেকোন ধরনের অশ্লীলতা দূর করা জন্য তাকওয়াবান হওয়ার বিকল্প আর কিছুই হতে পারেনা।

Bangla choti golpo_ techtonesbd.com
Stop Bangla choti golpo_ techtonesbd.com

ধরুন আপনি একটা খারাপ কাজ করছেন। ঐখানে আর কেউ নেই, কেউই আপনাকে দেখতে পারছে না। আপনি ইচ্ছ‍া করলেই সকলের অদৃশ্যে পাপ কাজটি সংগঠিত করতে পারেন। কিন্তু আপনি যদি ভাবেন যে, কোন মানুষ আপনাকে দেখুক আর না দেখুক ঐ আল্লাহ-তায়ালাতো আমাকে দেখছেন। তখনই কিন্তু ঐপাপ থেকে সহজেই ফিরে আসা যায়। আর আপনি যদি আল্লাহকে বা কোন ধর্মে বিশ্বাস না করেন তাহলে আপনাকে ঐ পাপ থেকে কেউই সরিয়ে আনতে পারবে না।

প্রকৃত পক্ষে ধর্মীয় অনুশাসন মানুষকে ভালোর দিকে নিয়ে যায়। তাই আমাদের মধ্যে ধর্মীয় মূল্যবোধ জাগিয়ে তুলতে হবে। একমাত্র ধর্মীয় মূলবোধই পারে আমাদেরকে এই সকল অপসংস্কৃতি থেকে মুক্তি দিতে।

Stop Bangla choti golpo_ techtonesbd.com

Stop Bangla choti golpo_ techtonesbd.com

# তাই চলুন আমরা সকলেই আমাদেরকে তাকওয়াবান হিসেবে তৈরি করার চেষ্ট করি। তা না হলে, আমাদের পরবর্তী জেনারেশন কিন্তু আমাদের চেয়েও খারাপ হয়ে যাবে। আমরা যদি তাদেরকে জানাযার নামায পড়া না শিখাই, তাহলে তারাতো আমাদের জানাযার নামায পড়াতে পারবে না। আর আমরা যদি তাদেরকে জানাযার নামায পড়া শিখাই, তাহলে তারাই আমাদের জানাযার নামায পড়াবে। কোন নেককার সন্তান যদি তার পিতা-মাতার জানাযা পড়ায়, তাহলে তার পিতা-মাতার কবরের আযাব আল্লাহ তায়ালা মাফ করে দেন। তাই আমাদের পরবর্তী জেনারেশনের জন্য রেখে যেতে হবে, একটি অপসংস্কৃতি মুক্ত সমাজ। যেখানে বিরাজমান থাকবে, ইসলামী সংস্কৃতি-ইসলামী মূল্যবোধ। তা না হলে ধ্বংস হয়ে যাব আমরা ও আমাদের বংশধরেরা।

তাই চলুন আজ থেকে নিজে bangla choti golpo তৈরি করা ও পড়া বন্ধ করে দিই এবং বন্ধু-স্বজনদের মধ্যে সকলকে bangla choti golpo না পড়‍ার উৎসাহ দিই। নিজে কে গড়ে তুলি একজন তাকওয়াবান ব্যক্তি হিসাবে। মহান আল্লাহ তাআলা আমাদের সকলকে ইসলামী জিন্দেগী যাপন করার সূযোগ করে দিন। আমিন।

ইসলামী জিন্দেগী নামক একটি ফেসবুক পেজকে পারলে লাইক দিন। ঐ পেজটি এডমিনদের মধ্যে দুই জন আলেম আছেন। আশা করি ভালো কিছু পাবেন ইনশআল্লাহ।

আমার ব্লগে সকলের দাওয়াত

‌আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন। আল্রাহ হাফেজ।

মোহাম্মদ নূরুল ইসলাম রনি

#আমার সম্পর্কে তেমন কিছু বলার নেই। তবে নিজেকে মহান আল্লাহ-তায়ালার একজন নগণ্য বান্দা হিসেবে পরিচয় দিতেই ভালোবাসি। আমার একটি অন্যতম শখ হচ্ছে, বেশী থেকে বেশী প্রযুক্তিকে জানতে ও জানাতে। এর প্রয়াসেই বিভিন্ন ব্লগে পোষ্ট করে থাকি। একবার আমার ব্লগ সাবাইকে দাওয়াত- www.pchelpcarebd.blogspot.com # দোলনা থেকে কবর পর্যন্ত জ্ঞান অন্বেষণ করো।----- আলহাদীস। প্রযুক্তির সূরে মেতে উঠুক, বাংলার প্রতিটি মানুষ.......

More Posts - Website

Follow Me:
Facebook

Leave a Reply